অনলাইন বাংলা সংবাদ পত্র

ইউরোপা লিগ চ্যাম্পিয়ন আতলেতিকো মাদ্রিদ

সত্যের সৈনিক অনলাইন: ফ্রান্সের লিওঁতে ফাইনালে বুধবার রাতে মার্শেইয়ের বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয়ে শিরোপা অর্জনের স্বাদ নিয়ে মাঠ ছেড়েছে আতলেতিকো মাদ্রিদ।

বিশ্বকাপ মিশনে যাওয়ার আগে ক্লাবকে দারুণ এক ফাইনাল উপহার দিলেন অঁতোয়ান গ্রিজমান। এনে দিলেন শিরোপা। তার জোড়া গোলে মার্সেইকে হারিয়ে ইউরোপা লিগে শ্রেষ্টত্ব অর্জন করেছে আতলেতিকো মাদ্রিদ।

প্রতিপক্ষের ভুলে ২১তম মিনিটে গোল পেয়ে যায় আতলেতিকো। নিজেদের ডি-বক্সের সামনে গোলরক্ষকের পাস মিডফিল্ডার জাম্বো আগিসা নিয়ন্ত্রণে নিতে ব্যর্থ হলে গাবি বল ধরে বাড়ান অঁতোয়ান গ্রিজমান। গোলরক্ষককে একা পেয়ে বল জালে জড়াতে কোনো সমস্যা হয়নি ফরাসি তারকা গ্রিজমানের (১-০)।

৩১তম মিনিটে বড় ধাক্কা খায় মার্সেই। পায়ে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক পায়েত। অশ্রুসিক্ত চোখে বিদায় নেওয়ার দৃশ্য ফ্রান্সের হয়ে তার বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্নকেও ফেলে দিল শঙ্কার মুখে।

এরপর প্রথমার্ধে কোনো দলই আর গোলের দেখা পায়নি।

দ্বিতীয়ার্ধের ৪৯তম মিনিটে দ্বিতীয় গোল করে জয় প্রায় নিশ্চিত করে অ্যাটলেটিকো। এবারও গ্রিজমান। সতীর্থ কোকের পাস থেকে ক্লিনিক্যাল ফিনিশ করেন গ্রিজমান (২-০)। এই মৌসুমে সব প্রতিযোগিতায় গ্রিজমানের ২৯তম গোল এটি।

দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর যেন খেই হারিয়ে ফেলে মার্সেই। শুরুতে আশাব্যাঞ্জক ফুটবল খেলা দলটিকে দ্বিতীয়ার্ধে প্রতিপক্ষের আক্রমণ সামলাতেই ব্যস্ত থাকতে হয়।

এরই মাঝে খেলার ধারার বিপরীতে ৮১তম মিনিটে ব্যবধান কমানোর সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট হয় তাদের। কন্সতানতিনোস মিত্রোগলুলের অনেকটা লাফিয়ে নেওয়া হেডে বল পোস্টে বাধা পায়।

আর ৮৯তম মিনিটে কোকের পাস ডি-বক্সে পেয়ে নিখুঁত কোনাকুনি শটে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে শিরোপা নিশ্চিত করেন আতলেতিকো অধিনায়ক গাবি।

নিষেধাজ্ঞার কারণে ডাগআউটে ছিলেন না দিয়েগো সিমেওনে। তবে ম্যাচ শেষের সঙ্গে সঙ্গে নেমে আসেন মাঠে, যোগ দেন শিরোপা উৎসবে। ২০১২ সালে তার অধীনেই এই প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় শিরোপাটি জিতেছিল আতলেতিকো মাদ্রিদ।

শেষ নয় বছরে এই নিয়ে তৃতীয়বার ইউরোপীয় ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হলো আতলেতিকো। ২০০৯-১০ ও ২০১১-১২ মৌসুমে আগের শিরোপা দুটি জিতেছিল মাদ্রিদের ক্লাবটি।

 

১৭ মে ২০১৮/সত্যের সৈনিক/ মো. শফিকুল ইসলাম সোহেল

Leave A Reply

Your email address will not be published.