অনলাইন বাংলা সংবাদ পত্র

ভারতকে হারিয়ে বিশ্বকাপ ফাইনালে নিউজিল্যান্ড

সত্যের সৈনিক অনলাইনএকাদশ বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হেরে বিশ্বকাপের স্বপ্ন ভাঙে নিউজিল্যান্ডের। যেখান শেষ হয়েছিল ২০১৫ বিশ্বকাপ ঠিক সেখান থেকে শুরু করে দ্বাদশ বিশ্বকাপের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ড। চলমান বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে ভারতকে ১৮ রানে হারিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল কিউইরা।

বৃষ্টিবিঘ্নিত বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে ২৪০ রানের সহজ লক্ষ্য পায় ভারত। জবাবে ব্যাট করতে নেমে কিউই বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি কোহলি এন্ড কোং। ম্যাট হেনরি, ট্রেন্ট বোল্ট ও মিশেল সাটনারের বোলিং তাণ্ডবে শেষ পর্যন্ত ৪৯.৩ ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ২২১ রানে থামে ভারতের ইনিংস। এতে ১৮ রানের নাটকীয় জয় পায় ব্ল্যাক ক্যাপসরা।

ভারত যখন ৯২ রানে ৬ উইকেট হারায় তখন যেন জয়ের সুবাতাস পাচ্ছিল নিউজিল্যান্ড। কিন্তু  এমএস ধোনি ও  রবিন্দ্র জাদেজার ১১৬ রানের জুটি ভয় ঢুকিয়ে দেয় উইলিয়ামসনদের মনে। সে সময় মনে হয়েছিল ভারতের জয়টা সময়ের ব্যপার। কিন্তু ৪৭.৫ ওভারে ভারতের হয়ে ইনিংসের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহক জাদেজা যখন দলীয় ২০৮ রানে ফেরেন তখনই ম্যাচ মোড় নেয় নিউজিল্যান্ডের দিকে। শেষ পর্যন্ত ধোনিকে রান আউট করে জয়টা সহজ করে নেয় গাপটিল।

এর আগে সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে দলীয় ৪ রানের মাথায় ভারত হারায় তাদের সবচেয়ে মূল্যবান উইকেট। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এক আসরে সর্বোচ্চ পাঁচ সেঞ্চুরি করা রোহিত শর্মাকে এ দিন মাত্র ১ রানেই সাজঘরে পাঠান ম্যাট হেনরি। রোহিত ৪ বলে ১ রান করে টম ল্যাথামের তালুবন্দি হন।

রোহিতের বিদায়ের পর টিম ইন্ডিয়ার স্কোর বোর্ডে ১ রান যুক্ত করতেই ট্রেন্ট বোল্টের এলবির ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। গুরুত্বপূর্ণ এ ম্যাচে ৬ বলে মাত্র ১ রান করেন কোহলি। ভারতের দলীয় সংগ্রহ তখন মাত্র ৫। এরই মধ্যে আবারও তাণ্ডব চালায় ম্যাট হেনরি। এবার তার শিকার আরেক ওপেনার লোকেশ রাহুল। রাহুলকেও ১ রানে ল্যাথামের তালুবন্দি করান হেনরি।

মাত্র ৫ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে ভারত যখন চরম চাপে তখন দলের হাল ধরেন দিনেশ কার্তিক ও ঋষভ পান্ত। খুব ধীর গতিতে ব্যাট চালান তারা। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের আগুন ঝরা বোলিংয়ের সামনে অসহায় টিম ইন্ডিয়া। ১৯ রানের জুটি গড়তেই ফের চমক প্রদর্শন ম্যাট হেনরি। এবার তার তৃতীয় শিকার হন কার্তিক। ২৫ বলে ১ চারে ৬ রান করেন তিনি। যার মধ্যে প্রথম ২০ বল ছিল রান শূন্য, ২১তম বলে চার মেরে রানের খাতা খোলেন নিশামের হাতে ক্যাচ আউট হওয়া কার্তিক।

খাদের কিনারায় পড়ে থাকা ভারতকে এবার টেনে তোলার দায়িত্ব নেন ঋষভ পান্ত ও হার্ডিক পান্ডিয়া। গড়েন ৪৭ রানের জুটিও। কিন্তু সে ঝুটিতে আঘাত করেন মিশেল সাটনার। তার শিকারে পরিণত হন ৪৭ রানের জুটি করা দুই ব্যাটসম্যানই। ঋষভ পান্ত (৩২) ও হার্ডিক পান্ডিয়া (৩২) রানে সাজ ঘরে ফিরেন।

তারপরই ধোনি-জাদেজা ১১৬ রানের বড় জুটি করেন। কিন্তু ৫৯ বলে ৪ চার ও ৪ ছক্কায় ৭৭ রানের ইনিংস খেলা জাদেজাকে সাজঘরে পাঠান বোল্ট। বিশ্বকাপ ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ ৫০ রান করে রান আউটের শিকার হন ধোনি। ভুবনেশ্বর কুমারকে ০ রানে ফার্গুসন আর যুজবেন্দ্র চাহালকে ৫ রানে আউট করেন জিমি নিশাম।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ম্যাট হেনরি তিনটি উইকেট শিকার করেন। এছাড়া ট্রেন্ট বোল্ট ও মিশেল সাটনার দুটি, লকি ফার্গুসন ও জিমি নিশাম নেন একটি করে উইকেট।

ম্যাচের প্রথম দিনের ২১১ রানের সঙ্গে রিজার্ভ ডেতে ২৮ রান যুক্ত করে ভারতকে ২৪০ রানের সহজ লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে কিউইরা। ৪৬.১ ওভারে ৫ উইকেট হাতে নিয়ে দ্বিতীয় দিনে ব্যাট করতে নামা ব্ল্যাক ক্যাপসরা শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৩৯ রান তোলে।

কয়েক দিনের বিরতির পর আবারও বৃষ্টির কবলে পড়েছে আইসিসি দ্বাদশ বিশ্বকাপ। ফলে মঙ্গলবার (৯ জুলাই) ভারত-নিউজিল্যান্ড সেমিফাইনাল পা দিয়েছে রিজার্ভ ডেতে। ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে গতকাল ৪৬.১ ওভার খেলতেই হানা দেয় বেরসিক বৃষ্টি। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে  এদিন ৫ উইকেটে ২১১ রান করেন কিউইরা।

মঙ্গলবার শেষ চারের প্রথম যুদ্ধ যেখানে বন্ধ হয়েছে বুধবার (১০ জুলাই) সেখান থেকেই শুরু হয়। যদিও বৃষ্টিতে নির্ধারিত সময়ে ম্যাচটি শুরু হতে বিলম্ব করে।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৪ রান করেন অভিজ্ঞ রস টেইলর। এছাড়া অধিনায়ক উইলিয়ামসন খেলেন ৬৭ রানের ইনিংস। বাদ বাকি কেউই দলের প্রয়োজনে বড় ভূমিকা রাখতে পারেননি। ভারতের পক্ষে ভুবনেশ্বর কুমার সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেন। এছাড়াও একটি করে উইকেট নেন জাসপ্রিত বুমরাহ, হার্ডিক পান্ডিয়া, রবিন্দ্র জাদেজা ও যুজবেন্দ্র চাহাল।

১০ জুলাই ২০১৯ / সত্যের সৈনিক / এমএসআইএস

Leave A Reply

Your email address will not be published.