অনলাইন বাংলা সংবাদ পত্র

মে‌ডিকেল চেক আ‌পের জন্য জুভেন্টাসে রোনালদো

স‌ত্যের  সৈনিক অনলাইন: ক্লাবের মেডিকেল সেন্টারে শারীরিক পরীক্ষার জন্য রোনালদো যখন এলেন রীতিমতো উৎসবের আবহ লেগে গেল তুরিনে। হাজার হাজার সারিবদ্ধ ক্লাব সমর্থকের হৃদয় ছুঁয়ে গেলেন মাঠে নামার আগেই। পরে এই ভক্তকূলকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন- জুভেন্টাসের জার্সিতেও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করবেন তিনি।

সব রোমাঞ্চের অবসান ঘটিয়ে অবশেষে তুরিনে পা রেখেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। সোমবার জুভেন্টাস পৌঁছানোর পরই তাকে উষ্ণ সংবর্ধনায় বরণ করে নিয়েছেন সমর্থকরা। নতুন ভক্তদের অভিবাদনের জবাবটাও দিয়েছেন রোনালদো। কয়েক মিনিটের মধ্যে ‘সিআর সেভেন’ জয় করে নিলেন সমর্থকদের মন।

ক্লাবের মেডিকেল সেন্টারে শারীরিক পরীক্ষার জন্য রোনালদো যখন এলেন রীতিমতো উৎসবের আবহ লেগে গেল তুরিনে। হাজার হাজার সারিবদ্ধ ক্লাব সমর্থকের হৃদয় ছুঁয়ে গেলেন মাঠে নামার আগেই। পরে এই ভক্তকূলকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন- জুভেন্টাসের জার্সিতেও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করবেন তিনি।

সোমবার ব্যক্তিগত বিমানে সরাসরি ইতালিতে ফিরেছেন রোনালদো। ছাই রঙের চেক স্যুট পরে যখন তিনি জুভেন্টাস স্টেডিয়ামে পৌঁছালেন, তাকে দেখার জন্য আগে থেকেই জড়ো হন হাজার হাজার সমর্থক। রোনালদো ভক্তদের সঙ্গে হাত মেলালেন, ‘জুভ জুভ’ গান গেয়ে চমকে দিলেন সবাইকে। তার অভিব্যক্তি দেখে কে বলবে জুভেন্টাসের খেলোয়াড় হিসেবে এদিনই প্রথম তুরিনে এসেছেন রোনালদো!

চুক্তিটা অবশ্য আগেই হয়ে গেছে। একশ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে জুভেন্টাসের চুক্তিপত্রে সই করেছেন রোনালদো। রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে দীর্ঘ নয় বছরের সম্পর্কের ইতি টেনে নতুন অধ্যায় শুরু করলেন তিনি। যেখানে শুরুতেই রোনালদো হুঙ্কার ছেড়ে বললেন, ‘নতুন করে নিজেকে প্রমাণ করার কিছু নেই। আমিই যে বিশ্ব সেরা সেটা ইতালিতেও দেখাতে চাই।’

বিশ্বের সবচেয়ে সফল ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে কেন জুভেন্টাসে এসেছেন সেটাও আরো একবার বললেন রোনালদো, ‘আমার বয়সী (৩৩ বছর) অনেক ফুটবলারই চীন, কাতার কিংবা আমেরিকায় খেলছেন। তাদের আমি অসম্মান করছি না। আমি চ্যালেঞ্জ নিতে ভালোবাসি। তাই জুভেন্টাসের সঙ্গে চুক্তি করেছি। একই কারণে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছেড়ে আমি রিয়ালে গিয়েছিলাম।’

তবে রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়ার সিদ্ধান্তটা যে সহজ ছিল না সেটা নিজ থেকে আরো একবার জানালেন রোনালদো। বলেছেন, ‘রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়ার সিদ্ধান্তটা অনেক কঠিন ছিল। আমার পরিবার, বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে পরামর্শ করেই জুভেন্টাসের সঙ্গে চুক্তিতে রাজি হয়েছি। জুভেন্টাস ইতালির সেরা ক্লাব। বিশ্বের অন্যতম একটা ক্লাবও। এখানে খেলার সুযোগ পেয়ে আমি গর্বিত।’

 

১৮ জুলাই  ২০১৮ / স‌ত্যের  সৈনিক / মো: শ‌ফিকুল  ইসলাম  সোহেল

Leave A Reply

Your email address will not be published.