তিন নেতাকে চোখ বেঁধে তুলে নেয়ার পর ছেড়ে দিয়েছে ডিবি

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

সত্যের সৈনিক অনলাইনঃ কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী তিন নেতাকে তুলে নেয়ার পর তাদের ছেড়ে দিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। সোমবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটার দিকে তাদের ডিবি কার্যালয় থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

এর আগে দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটের দিকে চানখারপুল থেকে তাদের একটি সাদা মাইক্রোবাসে করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বলে গণমাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেন ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন। এ খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

তার আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আন্দোলনকারীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটি সংবাদ সম্মেলনে করে।

ওই সংবাদ সম্মেলন থেকে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া চার মামলা দুই দিনের মধ্যে প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়।

তাদের একজন ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তার সঙ্গে ছাড়া পাওয়া অপর দুই নেতা হচ্ছেন সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর ও যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক আহমদ।

নুরুল্লাহ নূর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র, রাশেদ খান এমবিএর (ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগ) ছাত্র এবং ফারুক হোসেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র।

প্রত্যক্ষদর্শী পরিষদের আরেক যুগ্ম আহ্বায়ক বিন ইয়ামিন ঘটনা সম্পর্কে জানান, সংবাদ সম্মেলন শেষে বেলা পৌনে একটার দিকে তাঁরা কয়েকজন দুপুরের খাবার খেতে রিকশায় করে চানখাঁরপুল যাচ্ছিলেন। রাশেদ, নুরুল্লাহ ও ফারুক এক রিকশায় ছিলেন। আর তিনি ছিলেন পেছনের রিকশায়। ওই তিনজনকে বহনকারী রিকশাটি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে প্রবেশের ফটকের কাছে এলে পেছন থেকে তিনটি মোটরসাইকেল রিকশাটির সামনে গিয়ে গতিরোধ করে। পরে পেছন থেকে আরেকটি সাদা রঙের হাইএস মডেলের মাইক্রোবাস এসে সেখানে থামে। গাড়ি থেকে কয়েকজন নেমে রিকশা থেকে তিন নেতাকে নামিয়ে গাড়িতে তুলে নিয়ে চলে যায়।

একই তথ্য জানালেন আরেক প্রত্যক্ষদর্শী হাসপাতালের ফটকের উল্টো দিকে খাবারের দোকানের কর্মচারী মো. সালাউদ্দিন। তিনি বলেন, মোটরসাইকেল ও গাড়ি থেকে নেমে সাত-আটজন ওই রিকশার সামনে দাঁড়ায়। তারা তিনজনকে রিকশা থেকে নামাতে গেলে কিছুটা ধস্তাধস্তি হয়। পরে তিনজনের প্রত্যেককে দুপাশ থেকে দুজন করে ধরে গাড়িতে তুলে নিয়ে দ্রুত চলে যায়।

এদিকে ডিবির যুগ্ম কমিশনার আব্দুল বাতেন বলেন, তাদের কিছু তথ্য সহযোগিতার জন্য আনা হয়েছিল। তারা চলে গেছে। তাদের কিছু ভিডিও ফুটেজ দেখানো হয়েছে। সেগুলোর বিষয়ে তাদের কাছ থেকে তথ্য নেওয়া হয়েছে। তাদের আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি। সবার কাছ থেকেই তথ্য নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এর আগে সংবাদ সম্মেলন শেষে দুপুর ১২ টার দিকে রাশেদ খান জানান, তারা শাহবাগ থানায় যাবেন। নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত আন্দোলনকারীরা। এ ব্যাপারে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করবেন।

১৭ এপ্রিল ২০১৮/সত্যের সৈনিক/সুলতান মাহমুদ

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.