অনলাইন বাংলা সংবাদ পত্র

“মানব রোবটের সংসার”- মুসাফির মজনু

 

সামাজিক দলিলে কিনে নেয় পৌরুষ ভূস্বামী নারীর দৈহিক জমিন;
হয় না কোন মানসিক দর-দাম।
কখনো সমান্তরাল দুটি রেললাইন চলে ক্ষণিক, না হয় বহুদূর,,,
কখনো লাইনচ্যুত, কখনো সংসারে নামে আবছা আঁধার, আগামী দিনগুলো ভরে বেদনা বিভোর।
সম্পর্কের টানাপোড়েন, বিশ্বাসের দেয়ালের ফাটলে বেড়ে ওঠে তিক্ততার নিমগাছ;
বৃত্তটা বেড়ে যায় দাম্পত্যের ব্যবধানে, সংসার অসাড় হয়ে বীজ বুনে জ্বালাময়ী বিষকাঁটালী।

সম্মান, শাসন তথা সমাজের আবেদনে, নিয়মের বেড়াজালে নারীর যন্ত্রণা জীবন সংসারে,,,
এ’যেন ফেরারী সময়ে স্বেচ্ছায় কয়েদী জলন্ত কারাগারে।
চার দেওয়ালে জ্বলে অন্তর-মোম কামনার আগুনে পুড়ে;
অসহায় অনুভূতির ফ্রেমে বাঁধা প্রেমহীন জীবন্ত ছবি, জিন্দালাশ ঘুরে দাম্পত্যের করিডোরে।
পৌরুষ দৌরাত্ম্য কামনার ঝড়ে ফুল ঝরে প্রতিরাতে;
চোখের কার্ণিশে জোয়ার আসে, নোনা জলের প্লাবনে ভাঙে না ধৈর্যের সীমানা বাঁধন, আসে না ইচ্ছার যামিনীর কামিনী ঘুম।
পরাধীন খাঁচার পাখি ডানা ঝাঁপটায়, পায়ে নিন্দার শিকলে উড়তে চায়;
পারে না ভাঙতে অদৃষ্ট কাচের দেয়াল, কপাল লিখন আর বৈবাহিক নীতি!
জ্বলে অদৃশ্য বুকের সুপ্ত আগ্নেয়গিরি;
চোখে ভাসে করুণার জলছবি, সন্তানের মুখচ্ছবি, ফেলে আসা যৌবনের প্রতিচ্ছবি।
যাপিত জীবনে আঁকে মন পোড়া সংসার, নির্বাক মেনে নেয় বৈধ বলাৎকার!

না আছে হৃদয়ের টান, না আছে ভালোবাসার বাঁধন, আছে শুধু সাতপাকে বাঁধা সংযমের লাগাম, থাকে সংসারে টাঙানো সাইনবোর্ড লিখিত কাবিন!
নারী-পুরুষ এক ছাদে বসবাস, এক সাথে রাত্রিবাস, মন থাকে বিষাদসিন্ধুর দু’কূলে;
বৈধ সঙ্গমের অবৈধ মোহনার কি নাম হবে? কোন কিতাবে লেখা আছে স্বীকৃত ধর্ষণ?
এমন সম্পর্ক নিলামে ওঠে, ফুটে উঠে সামাজিক অবক্ষয়;
তবে কি নবযুগে রোবটের সংসার তারে কয়!!

২৪/০৮/১৯/সত্যের সৈনিক/জহিরুল বিদ্যুৎ

Leave A Reply

Your email address will not be published.