অনলাইন বাংলা সংবাদ পত্র

“ভেবোনা ষোড়শী”- সিরাজুল ইসলাম

 

গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে —
ক্লান্ত পথিক হাঁটে, ভাবনায় বিড়-বিড় কল্পকথা
কতো পথ চলে একা-একা,!

যেতে হবে দূর সীমানায়–
এখনো হাঁটতে হবে তিন ক্রোশ পথ, তার পর
নদীর ওপার–
সেই ছোট্ট পূবালীর গাঁ।

নিরাশার আশা দোলে মনে
ষোড়শী ভেবো না-
কতো বিস্তৃত মাঠ ঘাট খাল নদী পেরিয়ে
এই তো পথিক এলো বলে-.!

সবুজ মিশেছে যেথা মাটিতে
ঐ দূর সুদূরের গাঁ, তার পরে বিল ফলিয়া-
ক্ষিপ্র পথিক হেঁটে চলেছে, এই তো এলাম বলে,,
ভেবোনা লক্ষী মেয়ে —

চিকচিক মরুময় পথ
মাঝে মাঝে খেঁসারি কলাই, মটরশুঁটির খনি সেথা
ব্যাপক বিছানো ক্ষেত, রাইসরিষা,,

ক্লান্ত পথিক হাঁটে
পথ চলে একা একা হাজার স্বপ্ন সংশয়ে
কখন ফুরাবে পথ চলা-

বাঁকে বাঁকে শত স্মৃতি আঁকে
আজন্ম পিয়াসী মন-প্রাণ,, হুহু করে বারবার
তবু পথের ক্লান্তি ভুলে যায় –

ঐ দূরে পান্থপথে
মিশে যাবো আর একটু পর, তার পর ছোট্ট নদী
এই তো এলাম বলে
ভেবোনা সোনা মণি মেয়ে.!

কিছু পথ এখনো বাকী
ষোড়শী আর খুব হবে না দেরি
ক্লান্ত পথিক হাঁটে বিড়বিড় স্বপ্ন আঁকে মনে

পারের খেয়াটা ওপারে
সকাল গড়িয়ে বিকেল সূর্যটা রাগে ক্ষোভে লাল
একটু বাদেই নদী হবো পার
ভেবোনা চপলা মেয়ে–

তার পর হবে দেখা —
এসে গেছি খুব কাছাকাছি, এই তো এলাম বলে
তুমি ভেবোনা ষোড়শী মেয়ে ।

১১/০৬/১৯/সত্যের সৈনিক/জহিরুল বিদ্যুৎ

Leave A Reply

Your email address will not be published.